জাতিসংঘে শেখ হাসিনা সরকারের সাফল্যের কথা তুলে ধরলেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব নজিবুর রহমান।

0
317

নিজস্ব সংবাদদাতাঃ- জাতিসংঘে শেখ হাসিনা সরকারের সাফল্যের কথা তুলে ধরলেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব নজিবুর রহমান। জাতিসংঘ সদরদপ্তরে ‘উন্নয়নের জন্য অর্থায়ন (এফএফডি) ফোরাম’ এর চলতি অধিবেশনের সাইডলাইনে ইউএনডিপি ও ইউএনসিপিএফ আয়োজিত ‘নীতির স্পটলাইট: অতিক্ষুদ্র, ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোগে অর্থায়নের উদ্ভাবনী কৌশল’ শীর্ষক এক ইভেন্টে কী-নোট স্পিকার হিসেবে প্রদত্ত বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। ইভেন্টটির সহ-আয়োজক ছিল বাংলাদেশ।
বাংলাদেশে অতিক্ষুদ্র, ক্ষুদ্র ও মাঝারি এন্টারপ্রাইজের প্রসারে শেখ হাসিনা সরকারের সাফল্যের কথা তুলে ধরলেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব নজিবুর রহমান। তিনি বলেন, “এমএসএমই বাংলাদেশে প্রবৃদ্ধির অন্যতম ধারক এবং উদ্ভাবনীর চালক। এই সেক্টর দেশের অর্থনীতি বিশেষ করে গ্রামীণ অর্থনীতির আমুল পরিবর্তন করেছে। বাংলাদেশের বর্তমান প্রবৃদ্ধি ৮.১৩ হওয়ার ক্ষেত্রে এই সেক্টরের উল্লেখযোগ্য অবদান রয়েছে”।
এমএসএমই এর উন্নয়নে বর্তমান সরকার গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্যসচিব বলেন, “সরকার এমএসএমই এর অগ্রায়নে একটি আলাদা এসএমই ফাউন্ডেশন সৃষ্টি করেছে। পুঁজি বাজারে এমএসএমই এর অংশগ্রহণ বাড়ানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক এমএসএমই এর জন্য ‘এজেন্ট ব্যাংকিং স্কীম’ প্রবর্তন করেছে”।
বাংলাদেশে মোবাইল ফোনের ব্যবহারের সুফলের কথা তুলে ধরে মুখ্য সচিব নজিবুর রহমান বলেন, “দেশের প্রায় ৯০ ভাগ মানুষ মোবাইল ব্যবহার করছে। মোবাইল গ্রাহক সংখ্যা প্রায় ১৬০ মিলিয়ন”। মোবাইল ব্যবহারকে ঘিরে বাংলাদেশে গড়ে ওঠা মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস (এমএফএস) এর ব্যাপক বিস্তৃতি এবং সেই সাথে ব্যাংকিং, আর্থিক আদান-প্রদান ছাড়াও অনলাইন বা মোবাইল অ্যাপস্ ভিত্তিক ব্যবসার ব্যাপক প্রসারের কথাও উল্লেখ করেন তিনি। এমএসএমই খাতে তহবিল যোগান দেওয়ার জন্য এসএমই ফাউন্ডেশনের ক্রেডিট হোলসেলিং প্রোগ্রামের কথাও তুলে ধরেন তিনি।
মুখ্য সচিবের বক্তব্যে উঠে আসে বাংলাদেশের ডিজিটাল সেন্টার, এই সেন্টার ঘিরে উদ্যোক্তাদের বিভিন্ন সহযোগিতা নেওয়ার কথা; সরকার কর্তৃক নারী ও তরুন উদ্যোক্তাদের উৎসাহিত করার কথা।
প্যানেলের ছয়জন আলোচক বাংলাদেশে নারীর ক্ষমতায়ন, প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ পদক্ষেপ, এমএসএমই এর উন্নয়নে গৃহীত পদক্ষেপ, কোলেটারেল ফ্রি লোন, মোবাইল ফাইনান্সিয়াল সার্ভিসসহ বিভিন্ন উন্নয়ন পদক্ষেপ এবং অব্যাহত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির ভূয়সী প্রশংসা করেন। বাংলাদেশের এসকল উত্তম অনুশীলন বিশ্বের উন্নয়নকামী দেশসমূহ গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করতে পারে মর্মেও তারা অভিমত ব্যক্ত করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here