পূর্বভারত জাতীয় ক্যারাটে তে গোল্ড মেডেল পেলো তালদির পলাশ।

0
721

সুভাষ চন্দ্র দাশ, ক্যানিংঃ — কোন রকমে রঙের কাজ করে সংসার চালালেও একমাত্র ছেলের ক্যারাটে নিয়ে কোন কিছুর খামতি রাখতেন না বিমল হালদার। এমন অধ্যাবসায় দরিদ্র বাবা-মা কে স্থানীয় এলাকার প্রতিটি টুর্ণামেন্টে গোল্ড মেডেল এবং যশ খ্যাতি এনে দিয়ে তাঁদের স্বপ্নের দুচোখের আনন্দ অশ্রু মুছে দিয়েছে প্রথম বর্ষের ছাত্র পলাশ হালদার।ছোট থেকেই ক্যারাটের প্রতি ইচ্ছা থাকলেও পরিবারে আর্থিক সঙ্কটের জন্য প্রথম দিকে তেমন কোন প্রশিক্ষকের কাছে প্রশিক্ষণ নেওয়া হয়ে ওঠেনি দক্ষিণ ২৪ পরগণা জেলার সুন্দরবনের সিংহদূয়ার নামে খ্যাত ক্যানিংয়ের তালদি গ্রাম পঞ্চায়েতের কৃষ্ণকালি কলোনী এলাকার পলাশ হালদারের।
গত ২৮-২৯ সেপ্টেম্বর কলকাতার ক্ষুদিরাম বসু অনুশীলন কেন্দ্রে শুরু হয় ‘১৯ তম ইষ্ট ইন্ডিয়া স্লো কাপ ক্যারাটে চ্যাম্পিয়ানশিপ এবং ট্রেনিং ক্যাম্প। জাতীয়স্তরের ক্যারাটে চ্যাম্পিয়নশিপ ও ট্রেনিং ক্যাম্পে পূর্বভারতের বাংলা,বিহার,ঝাড়খন্ড,উড়িষ্যা সহ প্রায় সাতটি রাজ্যের ২৪০ জন প্রতিযোগি অংশ গ্রহন করে।কলকাতা সুরেন্দ্র নাথ কলেজের কলাবিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্র পলাশ হালদার প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী সমস্ত রাজ্যকে পিছনে ফেলে চ্যাম্পিয়ান হয়।
পলাশের হাতে ‘১৯ তম ইষ্ট ইন্ডিয়া স্লোকাপ ক্যারাটে চ্যাম্পিয়ানশিপ’ এর গোল্ড মেডেল তুলে দেন পলাশেরই প্রশিক্ষক বলরাম সরদার।

প্রিয় প্রশিক্ষক বলরাম সরদারের কাছে মাত্র ছয় মাসে প্রশিক্ষণ নিয়ে জাতীয়স্তরে ক্যারাটে প্রতিযোগিয়া কুমিটে গোল্ড মেডেল পাওয়ায় অভাবনীয় সাফল্যে খুশি ক্যানিং,তালদি সহ তার কলেজের সহপাঠীরা।
ক্যানিংয়ের তালদির যুবকের এমন সাফল্যে উচ্ছাসিত ক্যানিং ১ পঞ্চায়েত সমিতির প্রাক্তন সভাপতি তথা ক্যানিংয়ের যুবতৃণমূল সভাপতি পরেশ রাম দাস।তিনি বলেন “পলাশ আমাদের ক্যানিংয়ের গর্ব শারদীয়া উৎসবের পরেই আমরা পলাশ কে সংর্বধনা জানাবো”।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here