বাংলাদেশী ট্রলার সহ ছয় অনুপ্রবেশকারী গ্রেফতার।

0
880

সুভাষ চন্দ্র দাশ,ক্যানিং— একটি বাংলাদেশি ট্রলার সহ ছয় অনুপ্রবেশকারী কে গ্রেফতার করলো বনকর্মীরা। ঘটনাটি ঘটেছে গত সোমবার রাতে গোসাবা ব্লকের প্রত্যন্ত সুন্দরবন এলাকার হরিণখালি নদী এলাকায়।বাংলাদেশী ট্রলার থেকে ৪০ টি গাঙ্গেয় প্রজাতির হাঙর(গিটার ফিস),বেশকিছু বাংলাদেশী টাকা সহ বাংলাদেশি কে ছয় জন মৎস্যজীবীকে গ্রেফতার করে বনদফতরের কর্মীরা। মহম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেন(৩২),মহম্মদ সাহিন জমাদার (২০),মহম্মদ বেলাল হোসেন (৩২),মহম্মদ ইমরান চাপরাশি (৩২),মহম্মদ আব্দুল হক (৫৫),মহম্মদ ইমাদুল জমাদার কে গ্রেফতার করে জাতীয় উদ্যান পুর্ববনাঞ্চল এলাকার বাঘমারা বীট অফিসের বনকর্মীরা।
ধৃতদের আলিপুর আদালতে তোলা হলে বিচারক ১৪ দিনের জেলহেফাজতের নির্দেশ দেন।
বনদফতর সুত্রে জানাগেছে এদিন জাতীয় উদ্যান পুর্ববনাঞ্চল এলাকার বাঘমারা বীট অফিসের আধিকারীক নীলাদ্রী দাসের নেতৃত্বে বনকর্মীরা হরিণখালি নদী এলাকার সংরক্ষিত এলাকায় টহল দিচ্ছিলেন। সেই সময় বনকর্মীদের নজরে পড়ে একটি ট্রলার। তাঁরা ট্রলারটি কে আটক করে মৎস্যজীবীদের কে জিঞ্জাসাবাদ শুরু করেন। তাদের অসংলগ্ন কথাবার্তায় বিভিন্ন ধরনের অসঙ্গতি ধরা পড়ায় বনদফতরের কর্মীদের সন্দেহ আরো ঘণীভুত হয়। তাঁরা এরপর ট্রলার টি তল্লাশি করেন। ট্রলারের মধ্যে বিরল প্রজাতির ৪০ টি গাঙ্গেয় প্রজাতির হাঙর(গিটার ফিস) সহ বাংলাদেশী বেশ কিছু টাকা উদ্ধার হয়। পাশাপাশি বিনা অনুমতিতে ভারতের জলসীমা অতিক্রম করে সুন্দরবনে প্রবেশ করে বিরল প্রজাতির হাঙর ধরার জন্য বন্যপ্রাণ সংরক্ষণ আইন এ এই ছয় বাংলাদেশী মৎস্যজীবী কে গ্রেফতার করে। পাশপাশি ধৃতদের আর কোন বাংলাদেশী সঙ্গী ট্রলার ভারতীয় জলসীমায় রয়েছে কি না সে বিষয়ে তদন্ত শুরু করেছে।
জানাগেছে বাংলাদেশের বগুড়া জেলার দক্ষিণ গায়েন পাড়ার পাথরঘাটা এলাকার বাসিন্দা এই ছয় মৎস্যজীবী চোরাই পথে ট্রলার নিয়ে ভারতের জলসীমা অতিক্রম করে সুন্দরবনের নদীখাঁড়ীতে গাঙ্গেয় প্রজাতির হাঙর(গিটার ফিস) সহ অন্যান্য বিরল প্রজাতির সামুদ্রিক মাছ ধরে বিদেশে বিক্রি করে। এর পাশাপাশি সুযোগ বুঝে ভারতীয় মৎস্যজীবীদের ট্রলার দেখতে পেলে লুঠপাট করে বাংলাদেশে পালিয়ে যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here